আয়াতুল কুরসি

আরবি

اللّهُ لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ لاَ تَأْخُذُهُ سِنَةٌ وَلاَ نَوْمٌ لَّهُ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الأَرْضِ مَن ذَا الَّذِي يَشْفَعُ عِنْدَهُ إِلاَّ بِإِذْنِهِ يَعْلَمُ مَا بَيْنَ أَيْدِيهِمْ وَمَا خَلْفَهُمْ وَلاَ يُحِيطُونَ بِشَيْءٍ مِّنْ عِلْمِهِ إِلاَّ بِمَا شَاء وَسِعَ كُرْسِيُّهُ السَّمَاوَاتِ وَالأَرْضَ وَلاَ يَؤُودُهُ حِفْظُهُمَا وَهُوَ الْعَلِيُّ الْعَظِيم

বাংলা

আল্লাহু লাইলাহা ইল্লাহুওয়াল হাইয়্যুল ক্বইউম, লাতা’খুযুহু সিনাতুওঁ ওয়ালা নাওম, লাহু মাফিস্ সামাওয়াতি ওয়ামা ফিল আরদ, মানযাল্লাযি ইয়াশ্’ফাউ ইন্’দাহু ইল্লা বিইযনিহ, ইয়ালামু মা বাইনা আইদীহিম ওয়ামা খালফাহুম, ওয়ালা ইউহীতূনা বিশাইয়িম মিন ইলমিহি  ইল্লা- বিমাশাআ ,ওয়াসিয়া কুরসিয়্যুহুস সামাওয়াতি ওয়াল আরদ, ওয়ালা ইয়া উ দুহু হিফযুহুমা, ওয়াহুওয়াল আলিয়্যুল আযীম।

অনুবাদ

“আল্লাহ, তিনি ব্যতীত অন্য কোনো উপাস্য নেই, তিনি চিরঞ্জীব ও সর্বদা রক্ষণাবেক্ষণকারী, তন্দ্রা ও ঘুম তাঁকে স্পর্শ করে না, আকাশসমূহে ও যমীনে যা কিছু আছে সবই তারই; এমন কে আছে যে তাঁর অনুমতি ব্যতীত তাঁর নিকট সুপারিশ করতে পারে? তাদের সামনের ও পিছনের সবকিছুর ব্যাপারে তিনি অবগত। তাঁর জ্ঞানসীমা থেকে তারা কোনো কিছুকেই পরিবেষ্টিত করতে পারে না, কিন্তু যতটুকু তিনি আছে এবং এসবের সংরক্ষণে তাঁকে বিব্রত হতে হয় না এবং তিনি সমুন্নত মহীয়ান।” [সূরা আল-বাকারাহ, আয়াত: ২৫৫]

আপনার পছন্দ হতে পারে

নাজাতপ্রাপ্ত দল

উম্মতে মুহাম্মদী বহু দলে বিভক্ত হওয়ার মধ্যে যে মতবাদ ও মত পার্থক্য সৃষ্টি হইবে তন্মধ্যে একমাত্র মুক্তিপ্রাপ্ত দল হল আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত। রসূলে পাক (সা.) কে প্রশ্ন করা হইল, ইয়া রাসুল আল্লাহ (সা.) নাজাত প্রাপ্ত দল কোনটি? তখন তিনি ফরমাইলেন, আমি এবং আমার সাহাবাগণ যে মতের উপর কায়েম রহিয়াছি এই মতের উপর যারা কায়েম…

Continue reading

নিষিদ্ধ কাজ গুলো কিভাবে পরিত্যাগ করবেন

পবিত্র কোরআনে পাক ও হাদীছ শরীফ-এ শরীয়তের বিধিনিষেধ মানিয়ে চলা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য অপরিহার্য। ইহা ইবাদত। নিচের শরীয়তের মধ্যে নিষিদ্ধ কাজ গুলি উল্লেখ করা হলো :-  পিতামাতাকে কষ্ট বা গালি দেওয়া। অনর্থক কাউকে হত্যা করা। আল্লাহ তা’য়ালার সাথে অন্য কাহারো অংশীদারিত্ব স্থির করা।  কাফেরদের ভয়ে ধর্ম জিহাদ থেকে পলিয়ে যাওয়া। এতীমের সম্পদ আত্মসাৎ করা। ফরজ…

Continue reading

কৃপণতা বর্জন করা মুমিনের লক্ষণ

অপর মানুষের সম্মুখে সম্মান লাভের উদ্দেশ্যে কোন সৎকার্য করাকে রিয়া বলে। চলুন জেনে নেয়া যাক, কৃপণতা বর্জন করা কেনো মুমিনের লক্ষন। ১. সূরা আল মাউনের ঢীকায় ইমাম সুফিয়ান হইতে বর্ণিত, কৃপণ লোক আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য নামাজ আদায় করেনা, বড়লোকেদের নিকট সম্মানিত হওয়ার জন্য নামাজ পড়িয়া থাকে। তাহারা খুঁজ ও ক্লোদপূর্ণ জাহান্নামের নিম্নদেশে নিপতিত হইবে।…

Continue reading

যেই কারণগুলোতে ওজু করা সুন্নত

মসজিদে প্রবেশ করিবার জন্য। আলেমগণের সহিত সাক্ষাৎ করিবার জন্য। মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেওয়ার জন্য। স্ত্রীর সহিত সহবাস করিবার পূর্বে। কোন জানোয়ার জবেহ করিবার জন্য। নিন্দ্রা মানে ঘুমে যাইবার পূর্বে। পোস্টটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ আরো ভালো ভালো ইসলামিক পোস্ট পেতে আমাদের ইসলামী ক্যাটাগরি ভিজিট করুন

Continue reading

নামাজ পড়লে দেহ সঞ্চালন এর মধ্যে যে পার্থক্যগুলো হয়

নামাজের নিয়তের সময় ২ হস্ত উপরে উত্তোলন করিতে হয়, উহাতে ফুসফুস প্রশস্ত হয়। শ্বাসকার্যে বিশেষ সহায়তা করে রুকু করিবার জন্য দেহকে উপুরোভাবে রাখিতে হয়, এর ফলে পাকস্থলির সফল হয় এবং পরিপাক ক্রিয়ায় সাহায্য হয়। সিজদার সময় ঘার, মুখ মণ্ডল ও মস্তিষ্কে ঠিকমতো রক্ত প্রবাহিত হয়। বারবার ওঠানামার জন্যে দেহে রস জন্মাতে পারে না। চলাফেরার গতি…

Continue reading

নামাজের প্রকারভেদ

নামাজ সমস্ত উম্মতে মুহাম্মদীর জন্য ফরজ করা হয়েছে। যদি কেহ নামাজ ত্যাগ করে তাহলে সে ফরজ তরক করার গুনাহের শাস্তি পাবে আর ফরজ তরক করার শাস্তি অনেক বেশি। আর কিয়ামতের দিন সর্বপ্রথম নামাজের হিসাব নেওয়া হবে। নামাজ পাঁচ প্রকার ফরজে আইন ফরজে কেফায়া ওয়াজিব সুন্নত নফল ফরজে আইন ইহা সবার উপরই আদায় করা ফরজ। যেমন…

Continue reading

পোস্টটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ

আরো ভালো ভালো পোস্ট পেতে টেক্সটাইল বাংলাকে সাবস্ক্রাইব করুন।

Leave a Comment