মস্তিষ্কের কার্যক্রম সম্পর্কে জেনে নিন

মানুষ তার মস্তিষ্কের দিয়ে সারা দিন অনেক চিন্তা ভাবনা করে, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রকম চিন্তাভাবনা মাথায় আসে। কিন্তু আমরা কি জানি আমরা যে প্রতিদিন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে চিন্তা ভাবনা করি এই চিন্তাভাবনাগুলো মস্তিষ্কের কোন কোন অংশ থেকে আসে?

মস্তিষ্ক

সুষুস্নাকান্ডের শীর্ষে কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের যে স্ফীত অংশ করোটিকার মধ্যে অবস্থান করে তাকে মস্তিষ্ক বলে।

মস্তিষ্কের তিনটি অংশ :-

  • অগ্রমস্তিষ্ক
  • মধ্য মস্তিষ্ক
  • পশ্চাৎ মস্তিষ্ক

অগ্রমস্তিষ্ক

অগ্রমস্তিষ্ক

মস্তিষ্কের মধ্যে সবচেয়ে বড় অংশকে অগ্রমস্তিষ্ক বলা হয় অথবা সেরিব্রাম বলা হয়। অগ্র মস্তিষ্কের ডান ও বাম অংশ দুটি সম্পূর্ণ ভাবে বিভক্ত কারণ দুটি অংশের মাঝখানে বিভেদক অফ থাকায় এই ভিত্তি ঘটে। এদের সেরিব্রাল হেমিস্ফিয়ার বলে। সেরিব্রাম এর ডান ও বাম অংশ দুটি একগুচ্ছ নিউরন দিয়ে সংযুক্ত থাকে, একে কার্পাস ক্যালোসাম বলে। বাম সেরিব্রাম হেমিস্ফিয়ার দেহর ডান অংশ এবং ডান সেরিব্রাল হেমিস্ফিয়ার দেহের বাম অংশকে নিয়ন্ত্রণ করে। 

অগ্র মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশ :-

  • সেরিব্রাম
  • থ্যালামাস
  • হাইপোথ্যালামাস 

সেরিব্রাম এর কাজ 

  1. চিন্তা বুদ্ধি ইচ্ছাশক্তি উদ্ভাবনী শক্তি প্রভূতি উন্নয়ন মানসিক বোধর নিয়ন্ত্রণ।
  2. বাকশক্তি নিয়ন্ত্রণ‌
  3. সহজাত প্রবৃত্তি নিয়ন্ত্রণ।
  4. ঐচ্ছিক পেশির কার্যকালাপ নিয়ন্ত্রণ।

থ্যালামাস এর কাজ

  1. সংঙাবহ স্নায়ুর রিলের স্টেশন হিসেবে কাজ করে।
  2. চাপ যন্ত্রণা স্পর্শ প্রভূতির কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে।
  3. আবেগ ও অভ্যন্তরীণ অঙ্গের নিয়ন্ত্রক হিসেবে কাজ করে।
  4. ঘুমন্ত মানুষকে জাগিয়ে তোলে।
  5. মানুষের ব্যক্তিত্ব ও সামাজিক আচরণের প্রকাশ ঘটায়।
  6. পরিবেশ সম্পর্কে সতর্ক করে তোলে।

হাইপোথ্যালামাস এর কাজ

  1. দেহের তাপ নিয়ন্ত্রণ করে।
  2. ক্ষুধা তৃষ্ণা ঘাম ঘুম রাগ ঘৃণা উদ্যোগের কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে।
  3. অন্তঃক্ষরা গ্রন্থির ক্ষরণ নিয়ন্ত্রণ করে।

মধ্য মস্তিষ্ক

মধ্য মস্তিষ্ক

পশ্চাৎ মস্তিষ্কের উপরের অংশ হলো মধ্য মস্তিষ্ক। মধ্য মস্তিষ্কের পিছনে অবস্থিত নলাকৃতি বৃহৎ অংশের নাম পর্নস। এটি অগ্র ও পশ্চাৎ মস্তিষ্কের মধ্যে যোগসূত্র রচনা করে। 

মধ্য মস্তিষ্কের কাজ

  1. দর্শন ও শ্রবণ তথ্যের সমন্বয় ঘটায় এবং প্রতিবেদন তৈরি করে।
  2. বিভিন্ন পেশার কাজের সমন্বয় সাধন ও ভারসাম্য রক্ষা করে।

পশ্চাৎ মস্তিষ্ক

পশ্চাৎ মস্তিষ্ক

পশ্চাৎ মস্তিষ্ক মূলত দেহের ভারসাম্য রক্ষা করে।

পশ্চাৎ মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশ :-

  • সেরেবেলাম
  • মেডুলা অবলঙ্গাটা
  • পনস

সেরেবেলাম এর কাজ

  1. ঐচ্ছিক চলাফেরার নিয়ন্ত্রণ করে।
  2. ঐচ্ছিক পেশীটান নিয়ন্ত্রণ করে।
  3. দেহের ভারসাম্য ও দেহভঙ্গি বজায় রাখে।
  4. চলাফেরার দিক নির্ধারণ করে।

মেডুলা অবলঙ্গাটা এর কাজ

  1. হৃদস্পন্দন শ্বসন কাশি রক্তনালী সংকোচন লালা ক্ষরণ প্রভূতি স্বয়ংক্রিয় নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে।
  2. বমন মলমূত্র ত্যাগ রক্তচাপ পৌষ্টিক নালীর পেরিস্ট্যালসিস প্রভূতি নিয়ন্ত্রণ করে।

পনস এর কাজ

  1. দেহের দু’পাশের পেশীর কর্মকাণ্ডের সমন্বয় করে।
  2. স্বাভাবিক শ্বাসক্রিয়ার হার নিয়ন্ত্রণ করে।

আপনার পছন্দ হতে পারে

কলা খাওয়ার উপকারিতা

কলা আমাদের দেশে খুব পরিচিত একটি ফুড। এর উপকারী গুণ এর কথা তো বলে শেষ করা যাবেনা। চলুন তারপরেও যতটুকু না বললেই নয়। কলার মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও ফাইবার। আর এই কলাকে আমরা সবাই সুপার ফুড বলে থাকি। আমরা সবাই অনেকেই বিভিন্ন দামি দামি ফলের দিকে ঝুকি। কারণ, আমরা মনে করি দামি ফলের…

Continue reading

মানব শরীরে ভিটামিন ডি

ভিটামিন ডি, আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ শরীরের প্রতিটি কোষেই ভিটামিন-ডি গ্রহণকারী গ্রান্থি রয়েছে। ভিটামিন ডি এর সবচেয়ে বড় উৎস হল সূর্যের আলো। ভিটামিন ডি আমাদের শরীরের ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস এর ঘাটতি পূরণ করে। এগুলো ছাড়াও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।  কেন প্রয়োজন ভিটামিন ডি? ভিটামিন ডি আমাদের শরীরে বিভিন্ন ভাবে কাজে লাগে…

Continue reading

ভিটামিন ডি এর উৎস

ভিটামিন ডি এর প্রধান এবং মূল প্রাকৃতিক উৎস হল সূর্যের আলো, UV – B রশ্নি। তাছাড়া আরও অনেক স্থান থেকে ভিটামিন ডি আমাদের শরীরে প্রবেশ করে। আমরা প্রতিদিন খাবার গ্রহণ করি কিন্তু আমরা জানি না যে কোন খাবারের মধ্যে ভিটামিন ডি রয়েছে। এদের অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে যে ভিটামিন ডি এর উৎস অর্থাৎ ভিটামিন ডি…

Continue reading

ভিটামিন ডি এর অভাবে মানব শরীরে পরিবর্তন

ভিটামিন ডি এর অভাবে মানব শরীরে অনেক পরিবর্তনই ঘটে। যদি কোন মানবদেহে ভিটামিন ডি সঠিক পরিমাণে না থাকে তাহলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে তার মধ্যে বিশেষ করে যে সমস্যাগুলো দেখা দিবে তা হল :- রিকেটস রোগ এটি খুবই গুরুতর একটি রোগ শিশুদের জন্য, যা ভিটামিন ডি এর অভাবে হয়ে থাকে। রিকেটস রোগের লক্ষণ…

Continue reading

ভিটামিন ডি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ভিটামিন ডি এর যেমন উপকারী দিক রয়েছে তেমন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে। ভিটামিন-ডি সাপ্লিমেন্ট অতিরিক্ত ব্যবহার অথবা দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। ভিটামিন ডি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো ক্ষুধামন্দা বমি বমি ভাব ক্লান্তি মাথাব্যথা পেশী ব্যথা পেশির দুর্বলতা মুখ শুকিয়ে যাওয়া বৃক্কের কিডনি হওয়া বৃক্কে পাথর হওয়া স্বাদের পরিবর্তিত অনুভব করা ইত্যাদি। উপরোক্ত লক্ষণগুলো ভিটামিন ডি…

Continue reading

মিষ্টি কুমড়ার উপকারিতা

আমাদের দেশে মিষ্টি কুমড়া খুবই পরিচিত একটি সবজি। মিষ্টি কুমড়া খুবই পুষ্টিদায়ক একটি খাবার। যারা স্বাস্থ্যের প্রতি বেশি খেয়াল রাখে তারা অবশ্যই সপ্তাহে একবার হলেও তাদের খাবারের আইটেমের মিষ্টি কুমড়া রাখে। মিষ্টিকুমড়ায় রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, ভিটামিন সি, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন, কপার, ফসফরাস, জিংক, ম্যাঙ্গানিজ এবং বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমূহ। মিষ্টি কুমড়ার উপকারিতা…

Continue reading

পোস্টটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ

আরো ভালো ভালো পোস্ট পেতে টেক্সটাইল বাংলাকে সাবস্ক্রাইব করুন

Leave a Comment