গুছিয়ে কথা বলার সহজ নিয়ম

আমরা অনেকেই অনেক সময় কথা বলতে গেলে আটকে যাই অথবা গুছিয়ে বলতে পারিনা। নিজের কথাটা খুব সুন্দর ভাবে আরেকজনের কাছে উপস্থিত করতে পারিনা। আজকে এই পোস্ট পড়লেই আপনি বুঝতে পারবেন কিভাবে গুছিয়ে কথা বলতে হয়।

গুছিয়ে কথা বলার নিয়ম

  • দ্রুত কথা
  • শুদ্ধ উচ্চারণ
  • মুদ্রা দোষ
  • কনফিডেন্ট

দ্রুত কথা

কখনোই দ্রুত কথা বলবেন না। কারণ যখন আমরা দ্রুত কথা বলি তখন আমাদের মস্তিষ্ক ঠিকমতো চিন্তা ভাবনা করতে পারে না। তাই তখন আপনি কি বলছেন তা হয়তো নিজেও বুঝতে পারবেন না। সুতরাং কথা বলার সময় বেশী দ্রুত কথা বলবেন না আবার একেবারে স্লো ভাবেও বলবেন না। কথাগুলো এরকম ভাবে বলবে যাতে করে আপনার মস্তিষ্ক একটু চিন্তা করার সময় পায় যে আপনি কি বলছেন।

শুদ্ধ উচ্চারণ

কথা বলার সময়ে চেষ্টা করবেন, যেন আপনার মুখ থেকে যেই শব্দগুলো বেরোচ্ছে সবগুলো শুদ্ধ হয়। একটা জিনিস মনে রাখবেন আপনি প্রতিটি শব্দের যত শুদ্ধ উচ্চারণ করবেন ততই আপনার কথা মার্জিত হবে। তাহলে যে আপনার কথা শুনবে সে খুবই ভালো অনুভব করবে আর বলবেন না ছেলেটি সত্যিই অসাধারণ সুন্দর করে কথা বলতে পারে।

মুদ্রা দোষ

মুদ্রাদোষ অর্থাৎ, একই শব্দ কথার মাঝে মাঝে বারবার উচ্চারণ করা। যেমন, আপনি হয়তো স্কুল লাইফের দেখে এসেছেন ছেলেমেয়েরা পড়ার সময় এএএ -এএ, ওওওওও করে একটু পরপর। আবার অনেক মানুষ একটু পর পর বিভিন্ন শব্দ উচ্চারণ করে। আসলে অনেক টাইপের মুদ্রাদোষ থাকে। আপনারা যদি এরকম কোন অভ্যাস থাকে তাহলে অবশ্যই আপনি তা ত্যাগ করবেন। 

কনফিডেন্ট

কনফিডেন্ট অর্থ হল আত্মবিশ্বাস। আপনি যখন কনফিডেন্টলি কোন মানুষের সামনে আপনাকে প্রেজেন্ট করবেন, তখন আপনার আত্মবিশ্বাস এর ব্যাপারটা তার ভিতরে ঢুকে যাবে। এবং সে মনে করবে আসলেই মানুষটা অসাধারণ। তাই কখনোই কনফিডেন্ট অথবা বিশ্বাস ছাড়া কথা বলা যাবে না। 

উপরের সবগুলো উদাহরণ আপনি আপনার ভিতরে হুট করে ইন্সটল করতে পারবেনা। এর জন্য সময় নিয়ে প্র্যাকটিস করতে হবে। একটা জিনিস মনে রাখবেন, “যত বেশি প্র্যাকটিস করবেন তত পারফেক্ট হবেন”।

পোস্টটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ

Leave a Comment