মানসিকভাবে শক্তিশালী হওয়ার কিছু টিপস

এখানে প্রশ্ন হচ্ছে আমরা কি জানি মানসিকভাবে শক্তিশালী কে? 

যে কঠিন পরিশ্রমী, যে তারা আবেগ কে পরিচালনা করতে পারে, যে সর্বদা আনন্দের পিছনে ছুটি থাকে, যে সর্বদা সাকসেস অর্জন করে, যে তার শরীরকে যন্ত্রের মত পরিচালনা করতে পারে নাকি যে নিজেকে সবসময় স্বয়ংসম্পূর্ণ মনে করে। না ভাই এগুলো কখনোই নির্ধারণ করে না যে আপনি কতটা মানসিকভাবে শক্তিশালী। 

চলুন দেখে নেয়া যাক, কি কি উপায় আপনিও চাইলে মানসিকভাবে শক্তিশালী হতে পারবেন। তাহলে চলুন পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পুরোটা ভালোভাবে পড়া যাক।

মানব শরীরে জীন রয়েছে অথবা বংশগত ধারা রয়েছে সেইগুলো আমাদেরকে মেন্টাল হেলথ অর্থাৎ মুড, আচার-আচরণ ইত্যাদি অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করে। তারপর পার্সোনালিটিতে আসুন, কিছু মানুষ রয়েছে যারা ছোটবেলা থেকেই গম্ভীর বাস্তব চিন্তা ভাবনা করে। আবার কিছু কিছু মানুষ রয়েছে যারা কল্পনাবিলাসী এই ব্যক্তিত্বের ধারাগুলো কোন একজন মানসিক ভাবে শক্তিশালীকিনা তা অনেকটাই নির্ধারণ করে। আর একটু ভেবে দেখুন এক্সপেরিয়েন্স অর্থাৎ অভিজ্ঞতা আমাদের জীবনের অতীত অভিজ্ঞতাগুলি কিন্তু বর্তমান চিন্তাভাবনা আচার-আচরণ অন্য মানুষ সম্পর্কে ধারণা এবং এই বিশ্বকে অনুভব করার ক্ষমতা কি অবশ্যই খানিকটা নিয়ন্ত্রণ করে। সুতরাং আমরা মানসিকভাবে শক্তিশালী কিনা এটা নির্ভর করে প্রধানত আমাদের থট (চিন্তাভাবনা), আচার-আচরণ, ইমোশনালি আমরা কেমন এগুলোর ওপর।

চলুন দেখে নেয়া যাক কি কি উপায়ে মানসিকভাবে শক্তিশালী হওয়া যায়

  • পূর্বে কোন কাজের জন্য অনুতাপ করে সময় নষ্ট করা উচিত নয়। পূর্বের কোন কাজে যত বড়ই ভুল হোক না কেন তাতে একদমই অনুতাপ ও সময় নষ্ট করা উচিত নয়। যারা মেন্টালি স্ট্রং তারা কখনোই পূর্বের কোন কাজের জন্য অনুতাপ করে না। বরং পূর্বের কোন কাজ যদি তাদের ধরা ভুল হয়ে থাকে তার থেকে শিক্ষা নেয় যাতে করে পরবর্তীতে এমন ভুল আর কখনোই না হয়।
  • যারা মানসিকভাবে শক্তিশালী হয় তারা পরিবর্তনকে সানন্দে গ্রহণ করে। কারণ আমাদের এই অল্প সময়ে জিন্দেগীতে একমাত্র চিরস্থায়ী সত্য হলো পরিবর্তন। যে জীবনের পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত হতে পারে না সেই জীবনের প্রবাহ থেকে ছিটকে পড়ে। সে কখনোই মেন্টালি স্ট্রং হতে পারে না। দৈনন্দিন জীবনে আমরা যা ব্যবহার করি যেমন মোবাইল, কিছুদিন পরপরই আপডেট হয় আর আমরা আপডেটাই ব্যবহার করি। যদি একটি নির্দিষ্ট কোম্পানি মোবাইল আপডেট না দিত তাহলে অন্য একটি মোবাইল কোম্পানি আপডেট দিয়ে তার জায়গাটি দখল করে নিত। সুতরাং মানুষকে সময়ের সাথে বদলাতে হবে নয়তো যেই সেই থেকে যাবে। 
  • যারা মানসিকভাবে শক্তিশালী তারা কখনোই সেই সব বিষয়ের উপর ফোকাস করেনা যা তার নিয়ন্ত্রণে নেই। যারা দুর্বল মেন্টালিটির মানুষ হয়ে থাকে তারা অপরের উপর নির্ভরশীল হয়ে থাকে। কিন্তু যারা স্ট্রং মেন্টালিটির তারা নিজে যতটুকু পারো ততটুকুই উপরে নির্ভরশীল থাকে এবং এর মধ্যেই তারা কামিয়াবীর পতাকা ধরতে পারে। সুতরাং কখনোই নিজের কাছে নেই এমন কোনো কিছুকে আঁকড়ে ধরা যাবেনা। নিজের কাছে যা আছে তা দিয়েই শুরু করতে হবে।

আমরা কখনোই সবার মন জুগিয়ে কাজ করতে পারবোনা। যে সবার মন জুগিয়ে কাজ করতে চায় সে কখনোই নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবেনা। যে সবাইকে খুশি করতে চায় সে আসলে কাউকে খুশি করতে পারে না। তাই যাদের মেন্টালিটি স্ট্রং তারা নিজের ভালোবাসার দিকে লক্ষ্য স্থির করে চলে সততার ওপরে চলে। তারা তাদের নিজের মূল্য কে মাথায় রেখে কাজ করতে ভালোবাসো। চলুন আজকে আমরা সবাই জায়গা এবং পরিস্থিতি বুঝে বিনয়ের সাথে ‘না’ বলতে শিখুন। কোথায় কখন কাকে ‘হ্যা’ বলতে হবে তাও জানতে হবে আবার কোথায় কখন কাকে ‘না’ বলতে হবে তাও জানতে হবে। 

  • এই পর্যন্ত যত মানুষ সাকসেসফুল হয়েছে তারা সবাই ঝুঁকি নিয়েছেন। ঝুঁকি ছাড়া সাকসেসফুল হওয়ার সম্ভাবনা। তাই ঝুঁকি নেয়ার আগে সঠিকভাবে পরিকল্পনা করে হিসাব-নিকাশ ভালোভাবে কষিয়ে তারপরে ঝুঁকি নিন যাতে করে আপনার সফলতার চান্স বেশি থাকে। যারা মেন্টালি স্ট্রং থাকে তারা ঝুঁকি নেওয়ার পর কখনো পিছপা হয়না। কারণ তারা তাদের কথার উপরে অটুট থাকে।

উপরের লিখিত বিষয়গুলো ভালভাবে বুঝতে এবং শিখতে পারলে আপনি মেন্টালি স্ট্রং অথবা মানসিকভাবে শক্তিশালী হতে পারবেন।

আপনার পছন্দ হতে পারে

কলা খাওয়ার উপকারিতা

কলা আমাদের দেশে খুব পরিচিত একটি ফুড। এর উপকারী গুণ এর কথা তো বলে শেষ করা যাবেনা। চলুন তারপরেও যতটুকু না বললেই নয়। কলার মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও ফাইবার। আর এই কলাকে আমরা সবাই সুপার ফুড বলে থাকি। আমরা সবাই অনেকেই বিভিন্ন দামি দামি ফলের দিকে ঝুকি। কারণ, আমরা মনে করি দামি ফলের…

Continue reading

মানব শরীরে ভিটামিন ডি

ভিটামিন ডি, আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ শরীরের প্রতিটি কোষেই ভিটামিন-ডি গ্রহণকারী গ্রান্থি রয়েছে। ভিটামিন ডি এর সবচেয়ে বড় উৎস হল সূর্যের আলো। ভিটামিন ডি আমাদের শরীরের ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস এর ঘাটতি পূরণ করে। এগুলো ছাড়াও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।  কেন প্রয়োজন ভিটামিন ডি? ভিটামিন ডি আমাদের শরীরে বিভিন্ন ভাবে কাজে লাগে…

Continue reading

ভিটামিন ডি এর উৎস

ভিটামিন ডি এর প্রধান এবং মূল প্রাকৃতিক উৎস হল সূর্যের আলো, UV – B রশ্নি। তাছাড়া আরও অনেক স্থান থেকে ভিটামিন ডি আমাদের শরীরে প্রবেশ করে। আমরা প্রতিদিন খাবার গ্রহণ করি কিন্তু আমরা জানি না যে কোন খাবারের মধ্যে ভিটামিন ডি রয়েছে। এদের অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে যে ভিটামিন ডি এর উৎস অর্থাৎ ভিটামিন ডি…

Continue reading

ভিটামিন ডি এর অভাবে মানব শরীরে পরিবর্তন

ভিটামিন ডি এর অভাবে মানব শরীরে অনেক পরিবর্তনই ঘটে। যদি কোন মানবদেহে ভিটামিন ডি সঠিক পরিমাণে না থাকে তাহলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে তার মধ্যে বিশেষ করে যে সমস্যাগুলো দেখা দিবে তা হল :- রিকেটস রোগ এটি খুবই গুরুতর একটি রোগ শিশুদের জন্য, যা ভিটামিন ডি এর অভাবে হয়ে থাকে। রিকেটস রোগের লক্ষণ…

Continue reading

ভিটামিন ডি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ভিটামিন ডি এর যেমন উপকারী দিক রয়েছে তেমন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে। ভিটামিন-ডি সাপ্লিমেন্ট অতিরিক্ত ব্যবহার অথবা দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। ভিটামিন ডি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো ক্ষুধামন্দা বমি বমি ভাব ক্লান্তি মাথাব্যথা পেশী ব্যথা পেশির দুর্বলতা মুখ শুকিয়ে যাওয়া বৃক্কের কিডনি হওয়া বৃক্কে পাথর হওয়া স্বাদের পরিবর্তিত অনুভব করা ইত্যাদি। উপরোক্ত লক্ষণগুলো ভিটামিন ডি…

Continue reading

মিষ্টি কুমড়ার উপকারিতা

আমাদের দেশে মিষ্টি কুমড়া খুবই পরিচিত একটি সবজি। মিষ্টি কুমড়া খুবই পুষ্টিদায়ক একটি খাবার। যারা স্বাস্থ্যের প্রতি বেশি খেয়াল রাখে তারা অবশ্যই সপ্তাহে একবার হলেও তাদের খাবারের আইটেমের মিষ্টি কুমড়া রাখে। মিষ্টিকুমড়ায় রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, ভিটামিন সি, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন, কপার, ফসফরাস, জিংক, ম্যাঙ্গানিজ এবং বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমূহ। মিষ্টি কুমড়ার উপকারিতা…

Continue reading

পোস্টটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ

আরো ভালো ভালো পোস্ট পেতে টেক্সটাইল বাংলাকে সাবস্ক্রাইব করুন

Leave a Comment