প্রিন্টিং এর ইতিহাস (History of Printing)

এই পোষ্টের মাধ্যমে আমরা প্রিন্টিং এর ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারবো।

প্রিন্টিং এর ইতিহাস কখন থেকে শুরু হয়েছে তা নিয়ে বহূ সমালোচনা কিন্তু একথা জোরালোভাবে বলা যায় যে, চীন দেশে সর্বপ্রথম প্রিন্টিং এর কাজ দেখা গিয়েছিল। কেননা সর্বপ্রথম চীনারাই কাঠের ব্লক খোদায় করে কাপড় ছাপার কাজ শুরু করেছিল। ওই সময়ে গলিত মোম খোদাইকৃত কাঠের ব্লক দ্বারা কাপড়ে লাগিয়ে শুকানো হত। তারপর কাপুরকে রঙের মধ্যে ডুবিয়ে রাখা হতো। এই পদ্ধতিকে রেজিস্ট পদ্ধতি বলা হত। তখন শুধু লাল রং ও নীল রং ব্যবহার করা হতো। লাল রঙ হিসেবে ম্যাডার (Madder) এবং নীল রঙ হিসেবে ইন্ডিগো (Indigo) ব্যবহার করা হতো।

History of Printing

প্রাচীন যুগের সুতি কাপড়ে প্রিন্টিং মানেই গাছপালা, জীবজন্তু, ফুল-ফল, পাখি ইত্যাদির ছাপ দেওয়া হতো। প্রাচীন সময়ে প্রিন্টিং এর জন্য (স্টেনসিল) একটি জনপ্রিয় পদ্ধতি ছিল। এফবিতে কাপড়ে আঠালো পদার্থ দ্বারা পেইন্ট করে হতো, সেখানে স্বর্ণ বা রৌপ্য পাউডার ছড়িয়ে প্রিন্টিং করা হতো। প্রাচীন সময়ে টাই ডাই (Tie – Dye) পদ্ধতির প্রচলন ছিল।

টাইডাই সম্পর্কে জানতে – ক্লিক করুন

History of Printing

সতেরো শতকের শেষের দিকে হাতের সাহায্যে খোদাই করে রোলার প্রিন্টিং যাত্রা শুরু করা হয়। তারপর এনগ্রেভিং পদ্ধতি চালু হয়ে প্রিন্টিং পদ্ধতি আরও সহজ ও নিখুঁত হতে থাকে। তারপরে 18 থেকে 12 কালারের রোলার প্রিন্টিং পদ্ধতি আবিষ্কার হয়।

রোলার প্রিন্টিং এর কয়েক বছর পর ১৮ শতকের শেষের দিকে স্ক্রীন প্রিন্টিং পদ্ধতি চালু হয়। তবে তখন এই স্ক্রিন প্রিন্টিং পদ্ধতি খুবই ঝামেলাপূর্ণ ছিল তাই বাণিজ্যিক উৎপাদনের জন্য মোটেও লাভজনক ছিল না। ধীরে ধীরে সময়ের বিবর্তনে ভালো স্ক্রীন তৈরি এবং রাবার স্কুইজি ব্যবহারের মাধ্যমে এই পদ্ধতি ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেতে থাকে। বর্তমানে এই পদ্ধতি প্রযুক্তিগত ও যান্ত্রিকভাবে উন্নয়ন হওয়ায় এর ব্যবহার অনেক দ্রুত প্রসারিত হচ্ছে। তাছাড়াও বর্তমানে অনেক নতুন নতুন পদ্ধতিতে কাপড় প্রিন্টিং হচ্ছে।

প্রয়োজনীয় কিছু লিংক।

প্রিন্টিং কেমিক্যাল এর ব্যবহার জানতে – ক্লিক করুন

গার্মেন্টস প্রোডাক্টের কোয়ালিটি চেনার উপায় সম্পর্কে জানতে – ক্লিক করুন

পকেট স্যাম্পল কি জানতে – ক্লিক করুন

গার্মেন্টস ডিফেক্ট সম্পর্কে জানতে – ক্লিক করুন

মার্চেন্ডাইজিং কি গার্মেন্টস এবং মার্চেন্ডাইজিং কিভাবে করা হয় জানতে – ক্লিক করুন

অল ওভার প্রিন্টিং জানতে – ক্লিক করুন

Leave a Comment