টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারদের চাহিদা বাড়ছে

বাংলাদেশে বর্তমানে রপ্তানি খাতের টাকা সব থেকে বেশি আয় হয় টেক্সটাইলের খাত থেকে। এছাড়াও এই খাত বিশ্বের কাছে অন্যতম পোশাক উৎপন্ন রপ্তানিকর খাত হয়ে উঠেছে এবং বাংলাদেশের সবথেকে বড় বৈদেশিক মুদ্রা আনয়নকারী খাত হয়ে উঠেছে। এই গার্মেন্টস শিল্পে বর্তমানে 50 লক্ষ লোক কর্মরত রয়েছেন।

বিজিএমই এর দেওয়া তথ্যমতে –

engineers

২০১৬ – ২০১৭ অর্থবছরে গার্মেন্টস থেকে আয় হয় ২৮,১৪৯.৮৪ মিলিয়ন ডলার । ৮১.২৩% টুটাল রপ্তানি আয় টেক্সটাইল খাত থেকে।

২০১৭ – ২০১৮ অর্থবছরে গার্মেন্টস থেকে আয় হয় ৩০,৬১৪.৭৬ মিলিয়ন ডলার, যার পার্সেন্টেজ ৮৩.৪৯%।

২০১৮ -২০১৯ অর্থবছরে গার্মেন্টস রপ্তানি থেকে আয় হয় ৩৪,১৩৩.২৭ মিলিয়ন ডলার, যার পার্সেন্টেজ রপ্তানি আয়ের এর ৮৪.২১%।

বাংলাদেশের চলিত শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে কিছু কথা বলি –

বর্তমানে একজন শিক্ষার্থী এসএসসি পাস করার থেকে ডিপ্লোমা-ইন টেক্সটাইল (গার্মেন্টস, ডিজাইন অ্যান্ড প্যাটার্ন, জি ডি পি এম) পাস করার সঙ্গে সঙ্গেই কর্মজীবনে প্রবেশ করা নিশ্চিত। বর্তমানে ডিপ্লোমা-ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করার পরেই টেক্সটাইলের বিভিন্ন বিভাগে, যেমন: গার্মেন্টস, স্পিনিং মিল, ওয়েট প্রসেস, প্রিন্টিং, ডাইং, ইত্যাদি গার্মেন্টস এর ভিতরে আরও অনেক সেকশনে চাকরি করা সম্ভব।

টেক্সটাইল ইন্ডাষ্ট্রি নিয়ে অনন্ত জলিলের মনের কথা জানতে – ক্লিক করুন

করোনাভাইরাস ধ্বংসকারী পোষাক তৈরির দাবি – জানতে – ক্লিক করুন

demand-for-textile-engineers

বর্তমানে বাংলাদেশে গার্মেন্টস এর সংখ্যা –

  • আটটি ইপিজেডে ১৮১ টি 
  • ঢাকায় ১৫৫৫টি 
  • গাজীপুরে ৮৯৪টি 
  • নারায়ণগঞ্জে ৫২৬টি 
  • চট্টগ্রামে ৪৭১টি 
  • ময়মনসিংহে ৩৪টি 
  • টাঙ্গাইলে ৬টি 
  • কুমিল্লায় ৩ টি 
  • মানিকগঞ্জে ৩ টি 
  • নরসিংদীতে ৩টি 

মোট ৩৬৭৬টি কারখানা।

তথ্য সূত্র: শ্রম মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সংস্থা কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর

বাংলাদেশে ৩৬৭৬ টি গার্মেন্টস রয়েছে, প্রতিটি গার্মেন্টস এর বিভিন্ন বিভাগ যেমন – কাটিং, সুইং, স্যাম্পল চেক, কোয়ালিটি কন্ট্রোল, প্যাটার্ন ডিজাইন বিভাগে প্রচুর পরিমাণ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের চাহিদা রয়েছে। বিস্তারিত জানতে কল করতে পারেন ০১৮৩০৪৭৭২২৮ নাম্বারে। বাংলাদেশের পাশাপাশি বিদেশে পড়াশোনা করা খুবই সহজ, বিদেশে ভর্তি, ক্রেডিট ট্রান্সফার, মাইগ্রেশন এ ভর্তির সর্বোচ্চ সহযোগিতায় https://admission.ac । শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে তরুণ উদ্যোক্তা ফান্ড বাংলাদেশ ভেঞ্চার ক্যাপিটাল। বর্তমানে ২০১৯ -২০২০ শিক্ষাবর্ষে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ডিপ্লোমা-ইন-টেক্সটাইল এবং গার্মেন্টস ডিজাইন অ্যান্ড প্যাটার্ন মেকিং কোর্স এ ভর্তি চলছে। ভর্তি সম্পর্কে জানতে আমাদের এসএমএস করুন, অথবা কল করুন।

প্রয়োজনীয় কিছু লিংক।

পকেট এর প্রকারভেদ সম্পর্কে জানতে – ক্লিক করুন

ফিনিশিং ফল্টগুলো জানতে – ক্লিক করুন

প্রিন্টিং এর সাধারণ জ্ঞান জানতে – ক্লিক করুন

গার্মেন্টস ওয়াশিং সম্পর্কে জানতে – ক্লিক করুন

1 thought on “টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারদের চাহিদা বাড়ছে”

  1. করোনা আতংকে টেক্সটাইলের অবস্তা খুবই খারাপ।

    Reply

Leave a Comment