স্মার্ট হওয়ার উপায়

এই পোষ্টের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব কিভাবে স্মার্ট হওয়া যায় এবং স্মার্ট হওয়ার উপায়।

অনেকেই প্রশ্ন করেছেন স্মার্ট কিভাবে হওয়া যায় এবং স্মার্ট হওয়ার উপায় কি। আজকে আপনাদের প্রশ্নের উত্তর নিয়ে হাজির হলাম। চলুন তাহলে দেখে নেয়া যাক, স্মার্ট হওয়ার উপায় সম্বন্ধে।

স্মার্ট হওয়ার হওয়া খুবই দরকার। কারণ বর্তমানে পৃথিবীর সব দিক থেকেই এগিয়ে। তার জন্যই বর্তমানে সবার সাথে মেলামেশা করার জন্য স্মার্টনেস থাকা প্রয়োজন। বর্তমান সময়ে কেউ যদি আনস্মার্ট হয় তাহলে সবার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারবে না। আর তাল মিলিয়ে চলাটা খুবই জরুরী। যখন আপনি সবার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারবেন তখনই আপনাকে মানুষ স্মার্ট বলবে।

সবাই চায় স্মার্ট হতে কিন্তু সবাই পারেনা নিজেকে স্মার্ট ভাবে করে তুলতে। তাই আজকে এই পোস্টের মধ্যে আপনাদের এমন কিছু টিপস দেবো যাতে করে আপনি খুব সহজেই স্মার্ট হয়ে উঠতে পারেন। পোষ্টটি খুব মনোযোগ দিয়ে শেষ পর্যন্ত আর কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

স্মার্ট হওয়ার উপায়

  • বুদ্ধিমান হওয়া
  • বই পড়ার অভ্যাস করা
  • ঠান্ডা মেজাজের হওয়া
  • ফিটনেস ঠিক রাখা
  • অপ্রয়োজনীয় কথা থেকে বিরত থাকা
  • শিক্ষিত লোকদের সাথে চলাফেরা করা
  • ড্রেসিং সেন্স
  • মার্জিত ভাষায় কথা বলা।

বুদ্ধিমান

স্মার্ট হওয়ার জন্য বুদ্ধিমান হওয়া খুবই জরুরী। যার মস্তিষ্কের ক্ষমতা যত বেশি সে তত বেশি বুদ্ধিমান। একমাত্র একজন বুদ্ধিমান ব্যক্তি পারে তার নিজের ব্যক্তিত্বকে অন্যের কাছে ভালো ভাবে ফুটিয়ে তুলতে। তাই সবসময় বুদ্ধিমান হওয়ার চেষ্টা করুন।

বুদ্ধিমান মানুষ প্রতিদিন নতুন নতুন ইনফর্মেশন জোগায়, যাতে করে বর্তমান যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে। সুতরাং আপনিও প্রতিদিন নতুন নতুন ইনফর্মেশন কালেক্ট করে সেলফ ইমপ্রুভ করার চেষ্টা করেন।

বই পড়ার অভ্যাস

কথায় আছে, মানুষের প্রকৃত বন্ধু বই। প্রতিনিয়ত বই পড়লে খুব তাড়াতাড়ি self-improvement হয়। তার পাশাপাশি বুদ্ধি বিকাশ এবং যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলা সহ আরো অনেক উপায় মাথায় আসে। প্রতিদিনের তালিকায় একটি বইয়ের ১০ থেকে ১৫ পাতা পড়ার চেষ্টা করুন। কয়েক মাস পড়ার পরে পরিবর্তন আপনি নিজেই দেখতে পাবেন।

ঠান্ডা মেজাজ

স্মার্ট হওয়ার জন্য ঠান্ডা মেজাজি হওয়া খুব জরুরি। ঠান্ডা মেজাজের মানুষের সাথে সবাই কথা বলতে পছন্দ করে। যদি কারো সাথে কথা বলার সময় আপনি আপনার মেজাজ ঠান্ডা রাখতে না পারেন তাহলে আপনার সম্পর্কে অন্যের কাছে একটি খারাপ ধারণা সৃষ্টি হবে। তাই সর্বদা নিজেকে ঠান্ডা মেজাজে রাখার চেষ্টা করুন। ঠান্ডা মেজাজের মানুষ সর্বদায় মানুষের থেকে ভালোবাসা পায়। এবং তারা ধৈর্য ধরতে পারে। তাই ঠান্ডা মেজাজে স্মার্ট হওয়ার একটি বৈশিষ্ট্য।

ফিটনেস

কথায় স্মার্ট হওয়ার পাশাপাশি আপনাকে দেখতে স্মার্ট হতে হবে। আর দেখতে স্মার্ট হওয়ার জন্য ফিটনেস খুবই জরুরী। তাই নিয়মিত শরীর চর্চা অর্থাৎ ব্যায়াম করুন। যাদের শরীর ফিট থাকে তারা সর্বদা সুস্থ সবল অনুভব করে। আর যারা দেখতে রোগা হয় তারা সুস্থ সবল হয় না। তার কারণে তারা অনেক দিক থেকে পিছিয়ে পরে। তাই আপনি যদি নিজেকে স্মার্ট হিসেবে গড়ে তুলতে চান তাহলে অবশ্যই নিজের শরীরের দিকে ধ্যান দিন আর নিয়মিত শরীরচর্চা করার চেষ্টা করেন।

অপ্রয়োজনীয় কথা থেকে বিরত থাকা

স্মার্ট হওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি টিপসের মধ্যে একটি টিপস হলো অপ্রয়োজনীয় কথা থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখা। সব স্থানেই অপ্রয়োজনীয় বা অতিরিক্ত কথা না বলা। কারণ অতিরিক্ত কথার মধ্যে ভুল থাকার সম্ভাবনা বেশি। আর অতিরিক্ত কথা বলাটা অনেকেই পছন্দ করে না বরং বিরক্ত মনে করে। তাই যা বলবেন ভালো করে বলবেন এবং কথা বলে যাতে পস্তাতে না হয় ঐরকম কথা বলবেন। অপ্রোজনীয় কথা থেকে বিরত থাকা স্মার্ট হওয়ার গুরুত্বপূর্ণ একটি টিপস। তাই এ ব্যাপারে ভালোভাবে লক্ষ্য রাখবেন।

শিক্ষিত লোকদের সাথে চলাফেরা করা

সমাজের অনেকেই মানুষকে বিবেচনা করে এই দেখে যে, সে কার সাথে চলাফেরা করে। তাই সবসময় স্মার্ট, বুদ্ধিমান এবং শিক্ষিত লোকদের সাথে চলাফেরা করার চেষ্টা করবেন। 

কথায় আছে :- “সৎ সঙ্গে থাকলে স্বর্গবাস অসৎ সঙ্গে থাকলে সর্বনাশ”

স্মার্ট শিক্ষিত বুদ্ধিমান লোকেদের সাথে চলাফেরা করলে আপনিও খুব সহজেই তাদের গুণগুলো আপনার মধ্যে নিয়ে আসতে পারবেন। ভালো মানুষের সাথে চলাফেরা করলে অবশ্যই ভালো কিছু শেখা যায় এটাই স্বাভাবিক। আর শিক্ষিত মানুষের সাথে চলাফেরা করলে প্রতিদিন নতুন নতুন আইডিয়া এবং বিভিন্ন পরামর্শ পাবেন যাতে করে খুব সহজেই আপনি ও স্মার্ট হয়ে উঠতে পারবেন। 

ড্রেসিং সেন্স

স্মার্ট হওয়ার জন্য ড্রেসিং সেন্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ স্মার্ট হওয়ার আগেই স্মার্ট দেখাটা খুবই জরুরী। যে কেউ আপনাকে দেখে সর্বপ্রথম যে ধারণাটি করবে তা অবশ্যই ভালো হওয়া দরকার। মানুষ সর্বপ্রথম মানুষের পোশাক দেখে যোগ্যতা সম্পর্কে ধারণা করে। তাই ড্রেসিং সেন্স যদি ভাল হয় তাহলে অবশ্যই আপনাকে স্মার্ট দেখাবে। কলেজে গেলে কলেজের ড্রেস, কোন পার্টিতে গেলে পার্টি ড্রেস ইত্যাদি যেখানে যে রকম ড্রেস পরতে হয় সেখানে সেই রকম ড্রেস পড়তে হবে। এখনই আপনি নিজেকে পরিবর্তন করার জন্য চেষ্টা করুন।

মার্জিত ভাষায় কথা বলা

প্রত্যেকটা মানুষের সাথেই মার্জিত ভাষায় কথা বলুন, হোক সে ছোট হোক সে বড়। স্মার্ট হওয়ার একটি বড় গুণ হচ্ছে মার্জিত ভাষায় কথা বলা। যদি আপনি ছোট-বড় উভয়ের সাথে মার্জিত ভাষায়, নম্র ভাষায় কথা বলেন তাহলে সবাই আপনাকে খুব সহজে গ্রহণ করবে। আর যদি আপনি সবার সাথে রুক্ষ ভাষায় কথা বলেন তাহলে আপনাকে সবাই বর্জন করবে। সুতরাং সবার সাথে উত্তম ভাষায় কথা বলবেন সবাই আপনাকে যথেষ্ট সম্মান করবে। মার্জিত ভাষায় কথা বলার গুন আপনার ভিতরে নিয়ে আসার চেষ্টা করুন।

উপরোক্ত টিপস গুলো ভালোভাবে পড়ে নিজের উপর এপ্লাই করার চেষ্টা করুন। তাহলে খুব শীঘ্রই আপনার ভিতরে পরিবর্তন আসবে।


পোস্টটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ

আরো ভালো ভালো পোস্ট পেতে টেক্সটাইল বাংলার সাথেই থাকুন

টেক্সটাইল বাংলায় আপনাকে স্বাগতম!

আপনার লেখা টেক্সটাইল বাংলায় পাবলিশ করবেন কিভাবে?

Share your love
Maruf Sikder
Maruf Sikder

মোঃ মারুফ সিকদার। একজন টেক্সটাইল ইন্জিনিয়ার। টেক্সটাইল ছাত্র ছাত্রীদের কথা বিবেচনা করে শুরু করা টেক্সটাইল বাংলা। ব্যস্ততার পাশাপাশি টেক্সটাইলের বিভিন্ন বিষয়াদি আলোচনা করি টেক্সটাইল বাংলায়। আপনাদের জন্য এই ছোট প্রয়াস যেনো নিয়মিত কিছু করার প্রয়াস যোগায়। অবশ্যই টেক্সটাইল বাংলার সাথে থাকুন।

Articles: 701